প্রচ্ছদ » আইন আদালত » পেট্টোলের পরিবর্তে অবাধে বিক্রি হচ্ছে কনডেনসেট।

পেট্টোলের পরিবর্তে অবাধে বিক্রি হচ্ছে কনডেনসেট।

Posted By:নিজস্ব প্রতিবেদক | Posted In:আইন আদালত,গাইবান্ধা,জন দুর্ভোগ,পরিবেশ,ব্যবসা-বানিজ্য,ব্রেকিং নিউজ,মুক্ত মত | Posted On:Dec 21, 2014

এস এম বিপ্লব   ।।  টুডেবার্তা    ::   গাইবান্ধা   ।।

বাংলাদেশের বিভিন্ন গ্যাস ফিল্ডের উপজাত হিসেবে পাওয়া অপরিশোধিত তেল কনডেনসেট গাইবান্ধা জেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে পেট্রোল হিসাবে বিক্রির অভিযোগ উঠেছে। এই তেল জ্বালানী হিসেবে ব্যবহার করায় যানবাহনের ইঞ্জিনের ক্রটির কারণে যানবাহন মালিকরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। পাশাপাশি কনডেনসেট জ্বালানি হিসেবে ব্যবহৃত হওয়ায় বাতাসে প্রচুর পরিমানে কার্বন ডাই অক্সাইড গ্যাস নির্গত হয়ে বায়ু দুষন হয়ে পরিবেশকে বিপন্ন করে তুলেছে।

জানা গেছে,কতিপয় অসাধু তেল ব্যাবসায়ি অধিক লাভের আশায় দেশের বিভিন্ন গ্যাসফিল্ড থেকে উপজাত হিসেবে পাওয়া অপরিশোধিত তেল (কনডেনসেট) কমদামে নিয়ে এসে পেট্রোল হিসাবে খুচরা ব্যবসায়িদের কাছে সরবরাহ করছে।দীর্ঘদিন ধরে গাইবান্ধার সাতটি উপজেলার বিভিন্ন সড়কের পাশে গড়ে উঠা হাট-বাজারে অপরিশোধিত তেল পেট্রোল হিসাবে চালানো হচ্ছে।

জেলা জ্বালানি তেল পরিবেশক সমিতির সাধারণ সম্পাদক জাহিদ হোসেন বলেন,জেলার ১৮টি ফিলিং স্টেশনে সরকার নির্ধারিত প্রতি লিটার পেট্রোল ৯৬ টাকা ৪৯ পয়সা বিক্রি হচ্ছে। অথচ বিভিন্ন হাট-বাজারে পেট্রোলের নামে এসব অপরিশোধিত তেল কম দামে বেচাকেনা হচ্ছে যার প্রভাব বৈধ ব্যবসায়িদের উপরও পড়ছে।

জেলা জ্বালানি তেল পরিবেশক সমিতির সভাপতি এবং গাইবান্ধা শহরের কাদির এন্ড সন্স ফিলিং স্টেশনের স্বত্ত্বাধিকারি শাহজাদা আনোয়ারুল কাদির বলেন,কতিপয় অসাধু ব্যবসায়ি এসব অপরিশোধিত তেল বিক্রি করছে।এই তেল বিক্রি বন্ধে পরিবেশক সমিতির পক্ষ থেকে এব্যাপারে জেলা প্রশাসককে আবেদন করা সত্ত্বেও এখন পর্যন্ত প্রশাসন কোন পদক্ষেপ নেয়নি।

জেলা প্রশাসক মো.এহছানে এলাহী জানিয়েছেন অভিযোগ পাওয়া গেছে। এব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে।