প্রচ্ছদ » Slider » কালের স্বাক্ষী বজরা শাহী জামে মসজিদ

কালের স্বাক্ষী বজরা শাহী জামে মসজিদ

Posted By:নিজস্ব প্রতিবেদক | Posted In:Slider,ধর্ম,নোয়াখালি,পর্যটন,ফিচার | Posted On:Oct 02, 2014

মানিক ভূঁইয়া ।।  বিশেষ  সংবাদদাতা (নোয়াখালী) ::

কালের স্বাক্ষী হয়ে আজও  দাঁড়িয়ে রইলেও হারিয়ে যেতে বসেছে মোগল আমলে স্থাপত্য নোয়াখালীর সোনাইমুড়ি উপজেলার ঐতিহাসিক বজরা শাহী মসজিদ। সংস্কারের অভাবে হারিয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্য নির্দশন।

নোয়াখালী -ঢাকা প্রধান সড়কের পশ্চিম পাশে জেলার ঐতিহাসিক নিদর্শন গুলোর অন্যতম ঐতিহাসিক বজরা শাহী মসজিদ। মোগল সম্রাট মোহাম্মদ শাহের আমলে ১৭৪১ খ্রীষ্টাব্দে ত্রিশ একর জমিতে দিঘী ও মসজিদটি প্রতিষ্ঠা করেন বুজুর্গ জমিদার আমানুল্যাহ শাহ। ১১৬ ফুট দৈর্ঘ্য ও ৭৪ ফুট প্রস্থ বিশিষ্ট এ মসজিদের আকৃতি যা সম্রাট আকবরের সমাধী ও বিজাপুর জামে মসজিদে আকৃতি দেখা যায়।

মসজিদে নববীর মত অবতল আকৃতির মেহরাব রয়েছে। রয়েছে মসজিদের ভেতরের অংশে ততকালীন সময়ের বিখ্যাত কারু শিল্পির নিখুঁত ভাবে করা কারু কাজ। যা এখানকার স্থানীয় ও দূর-দূরান্ত থেকে আগত পর্যটকদের আকর্ষণ করে। এ মসজিদটি দেখতে অনেটাই তাজ মহলের মত। প্রয়োজনীয় সংস্কার আর নানা সমস্যার কারনে মসজিদটি হারিয়ে যেতে বসেছে তার ঐতিহ্য।

এখানে প্রতিদিন বাড়ছে দর্শনার্থীদের ভীড়। মসজিদে প্রতিদিন কে অসংখ্য নারী পুরুষ নেক মকসুদ পূরনের আশায় আসলেও স্থান সংকটের কারনে পোহাতে হয় নানা দূর্ভোগ। প্রয়োজনীয় সংস্কারের দাবী এলাকাবাসীর।

মসজিদের খতিব ইমাম হাসান ছিদ্দিক জানান,প্রায় ১০০ বছর আগে মসজিদের সৌন্দর্য বৃদ্ধির লক্ষে কাজ করা হলেও  তোরণ নির্মান আর  চারপাশে  সীমানা প্রাচীর সংস্কার করা প্রয়োজন। প্রধান সড়কের পাশে তোরণ নির্মান ও পর্যটকদের বসার স্থানে ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন।

সোনাইমুড়ি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আনোয়ারুল হক কামাল বলেন, প্রয়োজনী সংস্কার ও মোঘল ঐতিহাসিক নির্দশন ধরে রাখতে পরিষদের পক্ষ থেকে সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন।