প্রচ্ছদ » Slider » যে কারণে মালয়শিয়ায় পর্যটকদের এতো ভীড়!

যে কারণে মালয়শিয়ায় পর্যটকদের এতো ভীড়!

Posted By:নিজস্ব প্রতিবেদক | Posted In:Slider,পর্যটন,ফিচার | Posted On:Jul 17, 2014

পর্যটন ডেস্ক ।। টুডেবার্তা ::

ভ্রমন পিপাসুদের অন্যতম অনুসঙ্গ বিশ্ব ম্যাপ। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়গুলোতে তাবৎ দুনিয়ার মানচিত্র পর্যটকতের ট্রাভেল ব্যাগে  থাক আর না থাক মালশিয়ারটা থাকতেই হবে।এই গুন বা বৈশিষ্ট্য মালয়শিয়া একদিনে অর্জন করেনি।নিজেদের পর্যটন ব্যবস্থার অভাবনীয় উন্নতির মধ্য দিয়ে সমগ্র বিশ্বের মনোযোগ আকর্ষন করতে তারা সক্ষম হয়েছে।

ভ্রমন পিপাসুদের পছন্দের তালিকায় থাকতে পারে এশিয়ার থাইল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়ার বালি, নেপাল, ভুটান এবং মালয়েশিয়া। তবে, বিশেষ কয়েকটি কারণে প্রমোদ ভ্রমণেচ্ছুদের মালয়েশিয়ার দিকে খানিকটা বেশি আগ্রহ দেখাতে হবে।

malaysia-air-bridge-10

যোগাযোগ ব্যবস্থা :

মালয়েশিয়ার সবকিছিই যেন বেশ সাজানো-গোছানো। অভ্যন্তরীণ যোগাযোগ ব্যবস্থাও অনেক উন্নত। সড়কপথ, রেলপথ, জলপথ ও আকাশপথ বেশ কার্যকর এবং আরামদায়ক। সাজানো-গোছানো দেশটিতে ভ্রমণে  যোগাযোগ সুবিধা প্রত্যাশা অনুযায়ী হওয়ায় প্রতি বছর বিভিন্ন দেশের হাজারো পর্যটক এখানে ঘুরতে আসেন সানন্দে। প্রধান ভাষা মালয় হলেও কম বেশি সবাই ইংরেজি ভাষায় কথা বলে। তাই যোগাযোগের ক্ষেত্রে ভাষাগত দিক থেকেও তেমন কোনো সমস্যায় পড়তে হয় না এখানে।

malaysia-air-bridge-07

 জাতিগত দিক :

মালয়েশিয়ায় প্রধান জাতি মালয় হলেও আরও দুটি প্রধান জাতির বাস এখানে; চীনা ও ভারতীয়। মালয়েশিয়া এমন একটি দেশ যেখানে অন্তত তিনটি ভাষায় কথা বলা যায়। তিনটি প্রধান জাতির মিলনমেলার এ দেশে সবসময়ই কোনো না কোনো উৎসব লেগেই থাকে। উৎসবপ্রিয়দের জন্য মালয়েশিয়ার চেয়ে আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দু আর কী হতে পারে?

ভাষাগত দিক :

মালয়েশিয়া এমন একটি দেশ যেখানে অন্তত তিনটি ভাষায় কথা বলা যায়। মালয়, ইংরেজি এবং স্ব স্ব জাতির ভাষা; চীনা হলে মান্দারিন, ভারতীয় হলে তামিল বা হিন্দি।

images (1)

 খরচ মোটামোটি কম :

অন্য যে কোনো দেশের চেয়ে অনেক কম খরচে ভ্রমণ এবং কেনাকাটা করা যায় মালয়েশিয়ায়। এদেশের এক মুদ্রার (রিংগিত) মান বাংলাদেশি ২৪ টাকা। এখানে এক স্থান থেকে অপরস্থানে যাতায়াতের খরচ অনেক কম। শহরে ট্রেনে অথবা বাসে খরচ ১-৩ রিংগিতের মত। প্রতি বেলা খাবারে রিংগিত খরচা করতে হয় ৫-১০। এছাড়া, বিশ্বের উন্নত দেশগুলোর মধ্যে তুলনা করলে অনেক কম খরচে বেশ ভালো সার্ভিস পাওয়া যায় মালয়েশিয়ায়।

Malaysia_Pulau_Payar

কম সময়ে অধিক জায়গা ভ্রমন করতে পারা :

শহরে ট্রেনে অথবা বাসে যাতায়াত করা যায়। এছাড়া, বিশ্বের উন্নত দেশগুলোর মধ্যে তুলনা করলে অনেক কম খরচে বেশ ভালো সার্ভিস পাওয়া যায় মালয়েশিয়ায়।

দেশ এক কিন্তু সংস্কৃতি বহুদেশের :

একটি আন্তুর্জাতিকমানের পর্যটন নগরী হওয়ায় সমগ্র বিশ্বের বহুদেশ থেকেই পর্যটকদের আগমন ঘটে এখানে।ফলে ঐসব দেশের নাগরিকদের সাথে পারস্পরিক সংস্কৃতির বিনিময় ঘটানো যায় এবং তাদের সম্পর্কে সরাসরি জানা যায়।

images

বহুসংখ্যক স্পট :

মালয়েশিয়ায় ভ্রমণের জন্য রয়েছে প্রচুর স্পট। কুয়ালালামপুর, পেনাং, লংকাউই দ্বীপ, তিওমান দ্বীপ, পেরহেন্তিয়ান দীপ, ইপো, সেলাঙ্গর, মেলাকা, পেরাক ইত্যাদি এখানকার প্রধানতম দর্শনীয় স্থান। শুধু ভ্রমণই নয়, প্রতিটি স্পটেই রয়েছে উপভোগের নানা আয়োজন। এর মধ্যে-ডাইভিং, ট্র্যাকিং, ক্যাম্পিং, রাফটিং সহ অনেক অ্যাডভেঞ্চার রাইডে চড়ে ভ্রমণকে বেশ উপভোগ্য করা যেতে যেতে পারে।

ঘুরে দেখার পাশাপাশি বাহারি সব খাবার :

মালয়েশিয়ায় মানুষ বেশ খাবার প্রিয়। স্থানীয়দের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক পর্যটকদের রসনাবিলাসের জন্য প্রায় প্রতিটি দেশের খাবার আয়োজন রয়েছে এখানে। এর মধ্যে ভারতীয়, চীনা, মালয়, থাই, আরবি, ইরানি, কোরিয়ান, জাপানিজ ও ইউরোপীয় খাবারের স্বাদ জিহ্বাকে আরও বেশি প্রলুব্ধ করবে।islands-malaysia-layang-layang-big

কেনাকাটার সুবিধা :

কুয়ালালামপুরকে বলা হয় চতুর্থ বৃহৎ শপিং শহর। আকর্ষণীয় সব স্থানে জমজমাট শপিং মল গড়ে উঠেছে। এছাড়া, নাইট মার্কেট তো রয়েছেই।

অনিন্দ্য সুন্দর স্থাপনা :

টুইন টাওয়ার ছাড়াও মালয়শিয়ার প্রায় প্রত্যেকটি শহরে রয়েছে আধুনিক স্থাপত্যশৈলিতে গড়া অসংখ্য স্থাপনা যা দেখলে বিজ্ঞান- প্রযুক্তির অবারিত প্রসারণের এই যুগে মুগ্ধ না হয়ে পারা যায়না।

মালয়শিয়ায় প্রায় সারাবছরই পর্যটকদের ভীড় থাকেলেও বিশেষ বিশেষ মৌসুম বা উৎসবকে কেন্দ্র করে ভ্রমন পিপাসুদের আনাগোনা যেন আরও বেড়ে যায়।